সাবধান! এই অভ্যাসগুলি ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে (Habits That Increase Your Risk of Cancer)

by Team Onco
308 views

আপনার পরিবার বা বন্ধুবান্ধবদের মধ্যে যদি কেউ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়, তখন আপনার মনেও প্রশ্ন উঠতে পারে যে, আপনারও ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি নেই তো? গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি 9 জন ভারতীয়ের মধ্যে 1 জন তাদের জীবনের কোনও না কোনও সময়ে ক্যান্সারে আক্রান্ত হবেন। ক্যান্সারের বাড়বাড়ন্ত দিন দিন বেড়েই চলেছে। আমাদের জীবনধারা এবং দৈনন্দিন অভ্যাসগুলি এর জন্য কতটা দায়ী? স্বাভাবিকভাবেই এই প্রশ্ন ওঠে।

ক্যান্সার এমন একটা রোগ যার পিছনে লাইফস্টাইল বা জীবনযাত্রা অনেকটা দায়ী। ক্যান্সারের পিছনে জিনগত কারণও রয়েছে, তবে সেটা কেবলমাত্র 5-10% ক্যান্সারের জন্য দায়ী। এর মানে হল যদিও আমরা সম্পূর্ণরূপে ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারি না, তবে আমরা আমাদের জীবনযাত্রায় পরিবর্তনের মাধ্যমে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারি।

এখানে আমরা ছয়টি এমন অভ্যাস নিয়ে আলোচনা করব যা আমাদের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

তামাক ক্যান্সারের বৃহত্তম, সবচেয়ে প্রতিরোধযোগ্য কারণ। এটি মুখ এবং মুখগহ্বরের ক্যান্সার, ফুসফুসের ক্যান্সার, সার্ভিক্যাল ক্যান্সার এবং অন্যান্য বিভিন্ন রোগ ডেকে আনতে পারে।

গুটকা, জর্দা, পান মসলা ইত্যাদির আকারে তামাক চিবানো মাথা ও ঘাড়ের ক্যান্সারের প্রধান কারণ। ধূমপান, বাষ্প, হুক্কা ইত্যাদির আকারে তামাক সেবনও চরম ক্ষতিকারক।

 সহজ ভাষায় বললে, তামাক সেবনের কোনওভাবেই নিরাপদ নয়। কিন্তু ভাল খবর হল: একবার ধূমপান ছেড়ে দিলে কয়েক বছরের মধ্যে আপনি আপনার ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারেন।

তবে ধূমপানের অভ্যাস ত্যাগ করা অনেকের কাছেই খুব কঠিন। বেশ কয়েকটি সহায়তা গোষ্ঠী, আসক্তি মুক্ত করার পরামর্শদাতা এবং চিকিৎসক রয়েছেন যারা আপনাকে সফলভাবে ধূমপান ত্যাগ করতে সাহায্য করতে পারেন।

আপনি এখানে আরও পড়তে পারেন নিজেকে সুস্থ রাখার ১৫টি সহজ উপায়

  •  প্রসেসড ফুড বা প্রক্রিয়াজাত খাবার

চিপস থেকে শুরু করে রুটি, বিভিন্ন ধরণের প্রক্রিয়াজাত খাবার এখন বাজারে খুব সহজেই পাওয়া যায়। কিন্তু প্রসেসড ফুড কী স্বাস্থ্যকর?  আপনার কাছে পৌঁছানোর আগে প্যাকেটজাত খাবার পরিবর্তন করা হয়। অর্থাৎ সেই খাবারগুলি ইতিমধ্যে রান্না করা হয়েছে, তারপর ফ্রোজেন করা খাবার টিনজাত বা প্যাকেজজাত করে বাজারে বিক্রি করা হয়। প্রক্রিয়াকরণের ফলে খাবারের গুণাগুণ অনেকটাই বদলে যায়।

আপনি আপনার ফ্রিজ এবং বাড়িতে খুঁজে দেখুন কতগুলি প্রক্রিয়াজাত খাবার রয়েছে। দেখবেন নিয়মিত আমরা প্রায় 30% প্রক্রিয়াজাত খাবার গ্রহণ করে থাকি। যা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।

এই অভ্যাস পরিবর্তন করার জন্য ইচ্ছাশক্তি এবং অনুপ্রেরণা প্রয়োজন। তবে এই অভ্যাস বদলানোর করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল বাড়িতে রোজ তাজা শাক-সবজি নিয়ে আসুন এবং সুস্বাদু ও মজাদার নানা রকম রান্না করুন।

এখানে কিছু টিপস দেওয়া হল:

  • রান্নার একটি তালিকা তৈরি করুন (রেসিপি সহ) যেগুলি তাজা শাকসবজি, ফল এবং পুরো শস্য (যেমন বার্লি, বাজরা) দিয়ে তৈরি করা যেতে পারে। আপনার রন্ধনপ্রণালী এবং স্বাদ ও পছন্দের উপর নির্ভর রেসিপি বেছে নিন, বিভিন্ন ওয়েবসাইটে অনায়াসে পেয়ে যাবেন। সেই রেসিপিগুলি দেখে বাড়িতে সহজেই বানিয়ে ফেলতে পারেন নিত্য নতুন খাবার। এভাবে আপনি প্রক্রিয়াজাত খাবারের উপর নির্ভরশীলতা ধীরে ধীরে কমাতে পারেন।  
  • কেনাকাটা করতে যাওয়ার আগে রান্নার জিনিসপত্রের তালিকা তৈরি করুন। আপনার জন্য প্রয়োজনীয় ও স্বাস্থ্যকর উপাদানগুলি লিখুন এবং অন্যান্য লোভণীয় জিনিসপত্র যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।
  • তাজা ফল এবং সবজি বেছে নিন যেটা আপনি খেতে ভালোবাসেন। অন্যান্য উপকারী উপাদান এবং মশলাও খেয়ে দেখতে পারেন।
  • রান্নার জন্য আরও সময় দিন। এটা আপনার খাদ্যাভ্যাসকে সম্পূর্ণরূপে পরিবর্তন করতে পারে। অনেকেই আছেন যারা চাকরি করেন, রান্না করার সময় পান না। আবার অফিস থেকে ফিরে রান্নার ঝক্কি, অনেকেই এড়িয়ে চলেন। সেক্ষেত্রে প্যাকেটজাত খাবারের উপর তারা নির্ভরশীল হয়ে পড়েন, যার ফলে তাদের খাবারে পর্যাপ্ত পুষ্টিগুণ থাকে না।

আপনি অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ডায়েট অনুসরণ করতে পারেন যা আপনার ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কম করে। ইন্ডিয়ান অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ডায়েটের জন্য এখানে আপনি রেসিপি সহ একটি সম্পূর্ণ খাবার পরিকল্পনা পেতে পারেন।

  • অলস, কর্মবিমুখ জীবনযাপন

আপনি যদি বেশিরভাগ সময় শুয়ে বসে কাটান তাহলে আপনার মধ্যে ওবেসিটি বা স্থূলতার ঝুঁকি দেখা দিতে পারে। আর ওবেসিটি ক্যান্সারের ঝুঁকির সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত।

আপনি কীভাবে সক্রিয় জীবনযাত্রা বজায় রাখতে পারেন, তার জন্য এখানে কিছু সহজ টিপস পেতে পারেন।

সপ্তাহে চার থেকে পাঁচবার ত্রিশ মিনিটের এক্সারসাইজের অভ্যাস ক্যান্সার সহ বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমায়। হাঁটা হল সহজ একটি এক্সারসাইজ। ব্যায়াম করার সময় নিজেকে হাইড্রেটেড খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

  • চিনিযুক্ত পানীয়

ঠাণ্ডা পানীয় এবং প্রক্রিয়াজাত জুসে খুব বেশি মাত্রায় চিনি থাকে। উচ্চ চিনিযুক্ত পানীয় বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে। এটি ওবেসিটির সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত যা ক্যান্সারের আরেকটি ঝুঁকির কারণ।

চিনিযুক্ত পানীয়গুলি বিশেষত অল্প বয়স্ক মহিলাদের কোলোরেক্টাল ক্যান্সারের সাথে যুক্ত করা হয়েছে।

  • অ্যালকোহল

অ্যালকোহল আপনার মুখ, গলা, ভয়েস বক্স, খাদ্যনালী, লিভার, কোলন, মলদ্বার এবং স্তনের ক্যান্সার সহ বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। যদিও কিছু ধরণের ক্যান্সারের জন্য, বেশি পরিমাণে অ্যালকোহল সেবন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। অন্যান্য কিছু ধরণের ক্যান্সার রয়েছে(যেমন স্তন ক্যান্সার), অ্যালকোহল অল্প পরিমাণে খেলেও তার ঝুঁকি বাড়তে পারে।

  • রেড মিট

রেড মিট যেমন মাটন, ভেড়ার মাংস এবং পর্ক আপনার অন্ত্র এবং পাকস্থলীর ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

আপনি যদি নিয়মিত রেড মিট খাওয়ার অভ্যাস থেকে থাকে তাহলে তার পরিবর্তে মাছ এবং মুরগির মতো চর্বিহীন মাংস বেছে নিন। প্রোটিনের অন্যান্য ভালো উৎসের মধ্যে রয়েছে ডিম, মটরশুটি এবং মসুর ডাল।

ক্যান্সারের চিকিৎসা সংক্রান্ত যে কোনও সাহায্যের জন্য  9019923337 নম্বরে কল করুন অথবা আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন নিকটবর্তী Onco ক্যান্সার কেয়ার সেন্টারে যান, অথবা ডাউনলোড করুন Onco Cancer Care অ্যাপ।

Related Posts

Leave a Comment