ক্যান্সার চিকিৎসা চলাকালীন চুল পড়ার সমস্যা: আপনিও কী এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন? ( Hair Loss During Cancer treatment)

by Team Onco
573 views

ক্যান্সার চিকিৎসা সম্পর্কে প্রায় সবাই জানেন যে চিকিৎসার পর চুল ঝরতে শুরু করে। এটা গোপন করার মতো কোনও বিষয় নয়। কিন্তু আপনার এটাও জানা উচিত যে, এটি ক্যান্সার চিকিৎসা-র একটি সাময়িক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এবং কিছু সময় পর আবার আপনার চুল গজাবে।

ক্যান্সারের চিকিৎসায় ব্যবহৃত সমস্ত ওষুধই কিন্তু চুল পড়ার কারণ হয় না। তাই আপনার অনকোলজিস্টের সাথে একবার কথা বলুন যে আপনার জন্য নির্ধারিত ওষুধগুলি চুল পড়ার কারণ কিনা।

ক্যান্সারের চিকিৎসা চলাকালীন চুল পড়ার সমস্যা, চুল পড়ার সমস্যা, চুল পড়া, কেমোথেরাপি, কেমোথেরাপি চুল পড়া

প্রশ্ন: চুল পড়া কখন শুরু হবে?

সাধারণত আপনার ক্য়ান্সার চিকিৎসা শুরু হওয়ার 2 থেকে 4 সপ্তাহ পর থেকে চুল পড়া শুরু হয়। কেমোথেরাপি ছাড়াও, টার্গেটেড থেরাপি এবং হরমোন থেরাপির মতো চিকিৎসাগুলিও চুল পড়ার কারণ হতে পারে।

আপনার কতটা চুল উঠে যাবে তা ব্যবহৃত ওষুধ এবং ডোজেরও উপর নির্ভর করে। কিছু ওষুধের কারণে সম্পূর্ণ টাক পড়ে যেতে পারে, আবার কিছু ওষুধের থেকে শুধুমাত্র চুল পাতলা হতে পারে।

এতে কেবল আপনার মাথার চুলই নয়, আপনার শরীরের যে কোনও জায়গা (চোখের পাপড়ি এবং ভ্রু সহ) প্রভাবিত হতে পারে।

নিয়মিত চুল পড়ার জায়গায় আপনি আপনার ব্রাশ বা বালিশে চুল পড়ে থাকতে দেখতে পাবেন, কেমো-র কারণে আরও বেশি চুল ঝরতে শুরু করে। তখন আপনি দেখবেন গোছা গোছা চুল উঠছে।

এটা খুবই স্বাভাবিক চুল উঠে গেলে মন খারাপ হয়ে যায়। তাই অনেকে কেমোথেরাপি শুরু করার আগেই তাদের মাথা ন্যাড়া করে নেয়। এইভাবে তাদের চুল কীভাবে এবং কখন যায় তা কিছুটা তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকে।

প্রশ্ন: কেন এমন হয়?

কেমোথেরাপির ওষুধগুলি দ্রুত বর্ধনশীল ক্যান্সার কোষকে মেরে ফেলার জন্য তৈরি করা হয়েছে। দুর্ভাগ্যবশত, কখনও কখনও তা অন্যান্য দ্রুত বর্ধনশীল, সুস্থ কোষগুলিকেও প্রভাবিত করে। যার মধ্যে রয়েছে আপনার চুলের শিকড়ের কোষগুলি।

প্রশ্ন: আমি কি এই চুল পড়া রোধ করতে পারি?

সংক্ষিপ্ত উত্তর হল ‘না’। এই চুল পড়া সম্পূর্ণরূপে রোধ করার কোনও সফল উপায় গবেষণায় পাওয়া যায়নি। কিন্তু কিছু জিনিস আছে যা আপনি চুল পড়া কমাতে পারে এবং আপনার চুলের পুনঃবৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে।

  • এই সময়ে আপনার চুলের যত্ন নিন খুব আলতোভাবে। একটি নরম ব্রিসল ব্রাশ ব্যবহার করুন এবং সমস্ত স্টাইলিং প্রোডাক্টস, রঙ বা ব্লিচিং এড়িয়ে চলুন।
  • সমস্ত তাপ ভিত্তিক পদ্ধতিগুলি এড়িয়ে চলুন যেমন স্ট্রেটনিং বা কার্লিং।
  • একটি হালকা, অ্যালকোহল-মুক্ত এবং সুগন্ধি-মুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।
  • বাইরে যাওয়ার সময় চুল ও স্কাল্প ঢেকে রাখুন।
  • চুল ধোওয়ার পর, আপনার চুল শুকানোর জন্য একটি নরম তোয়ালে ব্যবহার করুন। তারপর চুল শুকিয়ে যেতে দিন।

প্রশ্ন: এই চুল পড়ার জন্য আমি কীভাবে প্রস্তুতি নেব?

প্রথম ধাপ হল এই চুল পড়ার জন্য নিজেকে মানসিকভাবে প্রস্তুত করা। অনেক ক্যান্সার ফাইটার এই বিষয়টি নিয়ে উদ্বিঘ্ন হয়ে পড়েন যে এই চুল পড়ার কারণে তাদের সামাজিক সম্পর্ক কীভাবে প্রভাবিত হবে। আমাদের সকলের জন্য, চুল আমাদের সেলফ-ইমেজ এবং ব্যক্তিত্বে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বিশেষ করে, মহিলাদের সৌন্দর্যে চুলের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। চুল নারীর এক অলংকার হিসেবে গণ্য করা হয়।

এটি মোকাবেলা করার দুটি উপায় রয়েছে এবং আপনি যেটি পছন্দ করেন তা বেছে নিতে পারেন। পরিবেশ পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে বিকল্পও বেছে নিতে পারেন:


  1.     আপনার চুল পড়া লুকান

আপনি এটা ভালো না লাগতেই পারে যে আপনাকে আপনার চুল পড়া সম্পর্কে কেউ প্রশ্ন করুক। আপনি আপনার ক্যান্সার চিকিৎসা-র কথা গোপন রাখতে পারেন। আপনি চাইলে আপনার চুল পড়ার বিষয়টিও লুকাতে পারেন।

আপনার কাছে ভালোভাবে ফিট হয় এমন উইগ এবং ক্যাপ ব্যবহার করার বিকল্প আছে। আপনি সেটার ব্যবহার করতে পারেন। কারও কারও কাছে এটা অস্বস্তিকর বলে মনে হতে পারে। তবে অনেকেই যাছেন যারা এগুলি ব্যবহার করতে পছন্দ করেন।

অনেক যোদ্ধা আছেন যারা নিজের চুল শেভ করে নেন এবং সেটা দিয়ে একটি উইগ তৈরি করান। এইভাবে তারা এখনও তাদের নিজস্ব চুল পরছে।

কেউ কেউ গ্ল্যামারাস উইগ পরতে পছন্দ করে যা তাদের সৌন্দর্য বাড়ায় এবং তাদের একটি সম্পূর্ণ মেকওভার দেয়।


  1.     আপনার মাথার টাক লুকাবেন না

ক্যান্সার যোদ্ধাদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার সাথে তাদের মাথার টাক না লুকিয়ে সকলের সামনে আসা এখন একটা ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। যা অনেক বেশি আরামদায়ক, সেইসঙ্গে সময়, অর্থ এবং পরিশ্রমও সাশ্রয় করা যায়।

একবার যখন আপনি আপনার পছন্দ বেছে নেবেন, আপনি তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারবেন।

প্রশ্ন: আমার চুল আবার কখন গজাবে?

সাধারণত, চিকিত্সা সম্পূর্ণ করার 2 থেকে 4 সপ্তাহের মধ্যে চুল দেখা দিতে শুরু করে। আপনার নতুন চুলের গঠন পুরানো চুলের তুলনায় আলাদা হতে পারে, কখনও কখনও চুলের রঙও আলাদা হতে পারে।

প্রথমদিকে, চুলগুলি বাচ্চাদের চুলের মতো নরম হয়। চুল ঘন হওয়ার জন্য চিকিত্সা শেষ করার পরে প্রায় তিন মাস মতো সময় লাগে।

আপনার চুল দ্রুত বৃদ্ধি করার নির্দিষ্ট কোনও উপায় নেই, তবে আপনি মাথার ত্বক এবং নতুন চুলের সুস্থতা বজায় রাখতে কয়েকটি জিনিস করতে পারেন।

  • চিকিৎসার সময় আপনার মাথার ত্বক কোমল এবং সংবেদনশীল হয়ে ওঠে। নিয়মিত একটি ঘন, নন-অ্যালকোহলযুক্ত লোশন দিয়ে ময়েশ্চারাইজ করতে ভুলবেন না।
  • নিয়মিত তেল ম্যাসাজ কিছু ক্যান্সার রোগীদের চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।
  • চুলের শুষ্কভাব এড়াতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় সিল্কের বালিশ ব্যবহার করুন (তুলার বিপরীতে)।
  • আপনার চুলের জন্য কঠোর এমন পণ্য ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন এবং রঙ করা এবং তাপ-ভিত্তিক চিকিত্সা এড়িয়ে চলুন
  • ন্যূনতমভাবে চুল ব্রাশ করতে থাকুন।

আপনি যদি এখনও এই বিষয়ে চিন্তিত হন তাহলে চুল ফিরে পেতে সাহায্য করতে পারে এমন ওষুধ এবং চিকিত্সা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

আরও পড়ুন : অল্পবয়সী মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ কী – কোন বিষয়ে সতর্ক থাকবেন? জানুন

(modafinil)

(vapingzone.com)

Related Posts

Leave a Comment