কেমোথেরাপির সময় কেন রক্তের কোষের সংখ্যা কমে যায়?

by Team Onco
315 views

কেমোথেরাপি ট্রিটমেন্টের ক্ষেত্রে সবচেয়ে সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে একটি হল শরীরের সামগ্রিক ব্লাড সেল কাউন্ট উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পাওয়া। আমাদের আজকের এই নিবন্ধে Onco -এর ডাঃ অমিত জোতওয়ানি এই বিষয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।

সাইটোটক্সিক কেমোথেরাপি: একটি নন টার্গেটেড চিকিৎসা পদ্ধতি

প্রচলিত কেমোথেরাপিকে প্রায়শই সাইটোটক্সিক কেমোথেরাপি (Cytotoxic Chemotherapy) বলা হয়, কারণ ক্যান্সার কোষ সনাক্ত করতে এবং ধ্বংস করার ক্ষেত্রে এই পদ্ধতিটি সমস্ত দ্রুত বিভক্ত কোষ গোষ্ঠীকে ধ্বংস করার জন্য পরিকল্পিত। এর মানে হল যে, সাইটোটক্সিক কেমোথেরাপির ওষুধগুলি শরীরের বিভিন্ন অংশে স্বাভাবিক কোষগুলিকে যেমন জিআই (গ্যাস্ট্রো ইনটেস্টিনাল) ট্র্যাক্ট, চুলের ফলিকল, বোন ম্যারো ইত্যাদিকে দ্রুত বিভাজিত করে।

বেশিরভাগ কেমোথেরাপির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার প্রধান কারণ হল এটি স্বাস্থ্যকর টিস্যুর ক্ষতি করে।

বোন ম্যারোতে কেমোথেরাপির প্রভাব

বোন ম্যারো (Bone Marrow) শরীরের নির্দিষ্ট হাড়ের ভিতরের অংশ, যেখানে রক্ত ​​কোষ গঠিত হয়। যখন একজন রোগীকে কেমোথেরাপির দেওয়া হয়, তখন ওষুধগুলি রক্তের মাধ্যমে শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এবং বোন ম্যারোয় পৌঁছায়। দ্রুত বিভাজিত ক্যান্সার কোষগুলিকে মেরে ফেলার জন্য এই ওষুধগুলি তৈরি করা হয়। একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এই ওষুধগুলি ক্ষতিগ্রস্ত বোন ম্যারোর কোষগুলিকে শেষ করে, যা প্রণালীতে রক্তের কোষগুলির একটি যুক্তিসঙ্গত সরবরাহ বজায় রাখতে দ্রুত বিভাজিত হয়।

একবার রোগীর বোন ম্যারো ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেলে, ম্যারো থেকে সদ্য গঠিত রক্তকণিকা সরবরাহ না হওয়ার কারণে সঞ্চালনকারী রক্তকণিকার পুনর্ব্যবহার মারাত্মকভাবে কমে যায়। অন্যদিকে বিদ্যমান সমস্ত কোষগুলির সংখ্যা তাদের কার্যকরী জীবনকাল অনুসারে হ্রাস পেতে থাকে।

এর ফলে সমস্ত কার্যকরী রক্তকণিকা, যথাক্রমে শ্বেত রক্তকণিকা (White Blood Cells) এবং লোহিত রক্তকণিকার (Red Blood Cells) সামগ্রিক সংখ্যা হ্রাস পায়, যার ফলে যথাক্রমে দমন প্রতিরোধ ক্ষমতা (suppressed immunity) এবং রক্তাল্পতা বা অ্যানেমিয়া (anaemia) হয়। প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস হওয়ার ফলে সংক্রমণের সম্ভাবনা বাড়তে পারে, যার ফলস্বরূপ জীবনহানির ঝুঁকি তৈরি হতে পারে।

ইমিউনোসপ্রেশন প্রতিরোধ (Preventing Immunosuppression)

সৌভাগ্যক্রমে, বর্তমানে এমন কিছু ওষুধ রয়েছে, যা শ্বেতকণিকার সংখ্যা হ্রাস রোধ করতে সাহায্য করতে পারে এবং ডাক্তাররা সাধারণত কেমোথেরাপি চিকিৎসা গ্রহণকারী রোগীদের জন্য এই জাতীয় ওষুধগুলি লিখে দেন। এই ওষুধগুলি বোন ম্যারোকে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করতে উদ্দীপিত করে, এইভাবে প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখতে সাহায্য করে এবং প্রাণঘাতী সংক্রমণ প্রতিরোধ করে।

দ্রষ্টব্য: কিছু ধরনের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সাধারণত সাইটোটক্সিক কেমোথেরাপিতে দেখা যায়। এই ধরনের উপসর্গ দেখা দেয় না, যখন চিকিৎসায় নতুন, টার্গেটেড কেমোথেরাপির ওষুধ ব্যবহার করা হয়। এটি ক্যান্সার কোষকে আরও কার্যকরভাবে শনাক্ত করতে এবং লক্ষ্য করতে সক্ষম হয়, স্বাস্থ্যকর ম্যারো কোষের ক্ষতি কমিয়ে দেয়।

পড়ার জন্য ধন্যবাদ!

Related Posts

Leave a Comment