ক্যান্সার রোগীদের জন্য ইমিউন বুস্টিং ফুড (Immune boosting foods for cancer patients)

by Team Onco
338 views

ক্যান্সার সবচেয়ে মারাত্মক একটি রোগ এবং এটি একজন ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়। ক্যান্সারের সাথে লড়াই করার জন্য, আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। ক্যান্সার কোষকে আক্রমণ করার প্রক্রিয়ায়, কেমোথেরাপি, রেডিয়েশন থেরাপি এবং ইমিউনোথেরাপি আপনার ইমিউন সিস্টেমের সঙ্গে কিছুটা হলেও আপস করতে পারে। এটি নিউট্রোপেনিয়া নামক একটি অবস্থার দিকে নিয়ে যেতে পারে, যেখানে আপনার রক্তে নিউট্রোফিল নামক সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইকারী শ্বেত রক্তকণিকার সংখ্যা নাটকীয়ভাবে কমে যায়।

রোগীদের খাওয়ার জন্য এমন কিছু খাবার রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে।

ক্যান্সার রোগীরা নিম্নলিখিত খাবার খেতে পারেন:

এখানে, আমরা আপনাকে নিয়মিত খাওয়া যেতে পারে এমন খাবার সম্পর্কে জানতে সাহায্য করব:

ব্রকলি (Broccoli)

ব্রকলি

এটি এমন একটি খাবার যা আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করতে পারে। এটি একটি পুষ্টিসমৃদ্ধ সবজি যা ভিটামিন সি এবং ফোলেট সমৃদ্ধ। এটিতে ক্যারোটিনয়েডের মতো উচ্চ মাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা শক্তিশালী উদ্ভিদ যৌগ যা আমাদের কোষকে ফ্রি র‌্যাডিক্যাল ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে পারে।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের ইমিউন সিস্টেমের কার্যকারিতা কমে যায়। যাইহোক, ব্রকলি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের এবং ক্যান্সারের জন্য কেমোথেরাপি বা রেডিয়েশন থেরাপির চিকিৎসা চলাকালীন প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে সাহায্য করে। 

বেরি (Berries)

ক্যান্সার রোগীর খাবার

বেরি

আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে জাম খুবই স্বাস্থ্যকর। এগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন এবং মিনারেল সমৃদ্ধ।

রসুন (Garlic)

রসুন

ক্যান্সার রোগীদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে রসুন অন্যতম সেরা খাবার। এটি এমন একটি পদার্থ যা বহু রোগের চিকিৎসার জন্য যুগ যুগ ধরে এর ব্যবহার হয়ে আসছে। এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, এটি এমন একটি যৌগ যা কোষকে ফ্রি র‌্যাডিক্যালের কারণে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি ক্যান্সার এবং হৃদরোগের বিরুদ্ধেও রক্ষা করতে সাহায্য করে।

অ্যাভোকাডো (Avocado)

অ্যাভোকাডো

অ্যাভোকাডো উচ্চ চর্বিযুক্ত একটি ফল এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করে। এটি মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, একই চর্বি অলিভ অয়েল এবং বাদামে পাওয়া যায়। এই চর্বি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। আপনি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অ্যাভোকাডো ব্যবহার করতে পারেন। স্মুদি, সালাদ এবং অমলেটে যোগ করতে পারেন।

ড্রাই ফ্রুটস (Dry Fruits)

ড্রাই ফ্রুটস

ক্যান্সার রোগীদের জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে বিভিন্ন ধরনের বাদাম দুর্দান্ত একটি বিকল্প। এগুলিতে ভিটামিন ই এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা ক্যান্সার কোষগুলির সাথে লড়াই করতে সহায়তা করে এবং তাদের নতুন টিউমার গঠনে বাধা দিতে পারে। এটিতে ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম, কপার, জিঙ্ক, ফোলেট, সেলেনিয়াম এবং ভিটামিন বি 6 এর মতো অন্যান্য পুষ্টিও রয়েছে যা সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য আপনার শরীরকে আরও শ্বেত রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করতে পারে।

কুমড়ো বীজ (Pumpkin seeds)

কুমড়ো বীজ

এটি রিবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, থায়ামিন, প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড এবং ফোলেটের মতো ভিটামিন বি-এর চমৎকার একটি উৎস। কুমড়োর বীজ অবসাদের বিরুদ্ধে লড়াই করতেও পরিচিত, এল-ট্রিপটোফ্যানকে ধন্যবাদ, একটি যৌগ যা আপনার মেজাজ বাড়াতে ভূমিকা পালন করে। এটি কিডনিতে পাথর, মূত্রাশয়ের পাথর এবং এমনকি ক্যান্সারের মতো অনেক অবস্থার সাথে লড়াই করতেও সাহায্য করতে পারে।

ঘরে তৈরি স্মুদি (Homemade smoothies)

ঘরের তৈরি স্মুদি

বাড়িতে তৈরি স্মুদি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করার একটি দুর্দান্ত উপায়। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা শরীরকে ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে। হোমমেড স্মুদিগুলিকে স্বাস্থ্যকর করে তোলে এমন প্রধান উপাদানগুলি হল ফল, শাকসবজি, ভেষজ এবং মশলা। এই উপাদানগুলি প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি সরবরাহ করে যা প্রদাহ কমাতে, হজমশক্তি উন্নত করতে, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। 

টমেটো (Tomatoes)

টমেটো

এই রসালো ফলটিতে ক্যারোটিনয়েড বেশি থাকে, এটি স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় বলে বিশ্বাস করা হয়। ক্যারোটিনয়েডযুক্ত অন্যান্য খাবারের মধ্যে রয়েছে গাজর, মিষ্টি আলু, পেঁপে, পালং শাক এবং কেল। টমেটোতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপিনও বেশি থাকে, যা রক্তে “খারাপ” চর্বির মাত্রা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

ঝোল

ঝোল

কেমোথেরাপির সময় স্বাদ পরিবর্তন হওয়াটা খুবই সাধারণ বিষয়। জলেরও স্বাদ তখন আলাদা মনে হয়। এক্ষেত্রে, আপনাকে শরীরকে হাইড্রেটেড রাখার জন্য ঝোল একটি দুর্দান্ত বিকল্প। এটি সবজি, ভেষজ উপাদান এবং মাংস বা হাঁস-মুরগি, সেইসঙ্গে ইচ্ছা হলে জলের মধ্যে হাড় দিয়ে ফুটিয়ে তৈরি করা হয়। এই প্রক্রিয়া চলাকালীন, ইলেক্ট্রোলাইটগুলি তরলে নির্গত হয়। এটার মধ্যে সোডিয়াম, পটাসিয়াম, ক্লোরাইড এবং ক্যালসিয়ামের মতো পুষ্টি রয়েছে, আপনার শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করবে। আপনি যদি বমি বা ঘামের মাধ্যমে ইলেক্ট্রোলাইট হারাতে থাকেন তবে ঝোলে চুমুক দেওয়া সহায়ক হতে পারে।

গোটা শস্য (Whole grains)

গোটা শস্য

ব্রাউন রাইস, বার্লি, ওটস এবং রাইয়ের মতো গোটা শস্য আমাদের খাদ্যের একটি প্রধান অংশ। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য এগুলি বহু শতাব্দী ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং পুষ্টি রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা উন্নত করতে সাহায্য করে।

এগুলিতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ক্যান্সার কোষগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং তাদের ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে সাহায্য করে। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে গোটা শস্য হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, ওজন বৃদ্ধি, উচ্চ কোলেস্টেরল এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করতে পারে।

আরও পড়ুন : খবরের কাগজের ঠোঙায় খাবার খান? সাবধান! হতে পারে ক্যান্সার

(https://winandoffice.com)

(sapns2.com)

Related Posts

Leave a Comment