ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য ক্যান্সার ডায়েট

by Team Onco
370 views

আপনি কী ডায়াবেটিসে ভুগছেন? সেইসঙ্গে আবার ক্যান্সারও ধরা পড়েছে? তাহলে আপনার প্রয়োজন একটি বিশেষ ডায়েট প্ল্যান। যা আপনাকে একইসঙ্গে উভয় রোগের সঙ্গে লড়াই করতে সাহায্য করবে।

কেবলমাত্র ডায়েট আপনার ক্যান্সার নিরাময় করবে তা কিন্তু নয়। তবে এটি আপনাকে আপনার ক্যান্সারের চিকিত্সা প্রতিরোধ করার জন্য পর্যাপ্ত পুষ্টি গ্রহণ করতে সাহায্য করবে এবং আপনি সম্মুখীন হতে পারেন এমন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও কমাতে সাহায্য করবে।

এই নিবন্ধে, Onco-এর সিনিয়র ডায়েটিশিয়ান ডাঃ কৃষ্ণা প্রিয়া আমাদের ডায়াবেটিস আক্রান্ত ক্যান্সার রোগীর জন্য ডায়েট কেমন হওয়া দরকার সেসম্পর্কে আলোচনা করেছেন।

ক্যান্সারে আক্রান্ত ডায়াবেটিস রোগীদের কোন খাবার এড়ানো উচিত?

সমস্ত খাবারের মধ্যে, কার্বোহাইড্রেট ব্লাড সুগার লেভেলের উপর সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে। এর কারণ হল কার্বোহাইড্রেট ভেঙে গ্লুকোজে পরিণত হয় এবং তারপরে আমাদের রক্ত ​​প্রবাহে শোষিত হয়।

স্টার্চ, সুগার এবং ফাইবারের মতো তিন ধরনের কার্বোহাইড্রেট রয়েছে। এর মধ্যে সুগার এবং স্টার্চযুক্ত কার্বোহাইড্রেট আমাদের রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায়। ফাইবার আমাদের রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায় না।

আপনার খাদ্যতালিকায় কম থেকে মাঝারি মাত্রায় কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবার (বিশেষত স্টার্চ এবং সুগারযুক্ত কার্বোহাইড্রেট) রাখুন। যা আপনার রক্তে শর্করার বৃদ্ধি রোধ করতে পারে এবং ডায়াবেটিস-সম্পর্কিত জটিলতার ঝুঁকি কমাতে পারে। 

কোন খাবার এড়িয়ে চলবেন

চিনিযুক্ত পানীয় (চা এবং কফিতে চিনি, শীতল পানীয়)

পানীয় (সোডা, সফ্ট ড্রিঙ্কস)

ভাজা খাবার যেমন চিপস, ফ্রাই

বেকারি পণ্য যেমন কেক, মাফিন

প্যাকেটজাত/প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন হিমায়িত খাবার, বিস্কুট

ট্রান্স ফ্যাট জাতীয় খাবারও এড়িয়ে চলতে হবে। যে প্যাকেটজাত খাবারগুলিতে প্যাকেটের উপর স্পষ্টভাবে লেখা আছে ‘আংশিকভাবে হাইড্রোজেনেটেড’ বা ‘partially hydrogenated’ সেইসমস্ত খাবার সম্পূর্ণরূপে এড়িয়ে চলুন।

ময়দা রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায়। সুতরাং বাড়িতে রান্না করার সময় ময়দার ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।

ক্যান্সার + ডায়াবেটিস ডায়েট

8-18% ক্যান্সার রোগীর ডায়াবেটিস আছে। যখনই এই রোগীদের মধ্যে ক্যান্সার ধরা পড়ে, ডায়াবেটিসের চিকিৎসা আগে করা হয়। যাইহোক, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা আপনার ক্যান্সারের চলাকালীন পর্যাপ্ত পুষ্টি পরিচালনার মতোই গুরুত্বপূর্ণ।

কিছু ক্যান্সারের চিকিত্সা এবং ওষুধ আপনার রক্তে শর্করার মাত্রাকেও প্রভাবিত করতে পারে। সুতরাং আপনার ক্যান্সারের চিকিত্সা চলাকালীন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করা গুরুত্বপূর্ণ।

এই সমস্ত রোগীদের দরকার একটি ভালো ডায়েট প্ল্যান, যেখানে কম চর্বি এবং ক্যালোরিযুক্ত পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন, শাকসবজি, গোটা শস্য এবং সিরিয়াল অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

 

হাই প্রোটিন ডায়েট বেছে নিন

ফাইবার কি?

ডায়েটারি ফাইবার (Dietary fibre) দুটি প্রকারে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়: দ্রবণীয় (soluble) এবং অদ্রবণীয় (insoluble)।

দ্রবণীয় ফাইবার পাওয়া যায় ওটস, মটর, আপেল, মটরশুটি, সাইট্রাস ফল, গাজর ব্রকলি ইত্যাদি খাবারে। এই খাবারগুলি রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।

অদ্রবণীয় ফাইবার পাচনতন্ত্রের মাধ্যমে মল সহজে যেতে সাহায্য করে, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে। গমের আটা, বাদাম, সবজি যেমন ফুলকপি, আলু ইত্যাদি।

প্রতিদিন আপনার মোট ফাইবার গ্রহণ পরিমাণ 25 – 30 গ্রামের মধ্যে হওয়া উচিত।

তবে, কিছু ডায়াবেটিক রোগীর ক্ষেত্রে ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার কিছু উপসর্গকে বাড়িয়ে তুলতে পারে, যেমন লুজ মোশন। একইভাবে, যারা পেটের ক্যান্সারে ভুগছেন তারা ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার থেকে উপকৃত হবেন না। সেই কারণে আপনার প্রয়োজনমতো ডায়েট প্ল্যান প্রয়োজন হবে। আপনার যদি কাস্টমাইজড ডায়েট প্ল্যানের প্রয়োজন হয় তাহলে আপনি আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন এই নম্বরে 79965 79965।

ওটস হল দ্রবণীয় ফাইবারের অন্যতম উৎস

ডায়াবেটিস সহ ক্যান্সার রোগীদের জন্য কোন খাবার ভালো?

যেকোনও খাবারের ‘গ্লাইসেমিক ইনডেক্স’ বোঝা খুব গুরুত্বপূর্ণ, যা পরবর্তীকালে আপনার জন্য  সহায়ক হবে। নির্দিষ্ট কোনও খাবার আপনার জন্য ভালো কি না সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবে।

গ্লাইসেমিক ইনডেক্স হল একটি খাবারের জন্য নির্ধারিত মান যা সেই খাবারটি কত ধীরে বা কত দ্রুত আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়াতে পারে তার উপর নির্ভর করে। কম গ্লাইসেমিক সূচকযুক্ত খাবারের স্কোর 55-এর নিচে থাকে। এই খাবারগুলিতে কার্বোহাইড্রেট থাকে যা ভেঙে যেতে বেশি সময় নেয় এবং রক্তে শর্করার মাত্রা খুব ধীরে ধীরে বাড়ায়।

আপনার ডায়েটে ডিম অন্তর্ভুক্ত করুন

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ডিম একটি ভালো খাবার কারণ এতে প্রোটিন বেশি থাকে (যা ক্যান্সারের চিকিৎসার সময় গুরুত্বপূর্ণ) এবং এর গ্লাইসেমিক সূচক কম। এটিতে 9টি অ্যামিনো অ্যাসিড রয়েছে যা আমাদের শরীর তৈরি করতে পারে না। এটি পটাসিয়ামের একটি ভালো উত্স যা কেমোথেরাপির পরে চুলের পুনর্গঠনের জন্য ভালো।

তবে ডিমে কোলেস্টেরল বেশি থাকে। তাই ডায়াবেটিস রোগীরা সপ্তাহে তিনবার ডিম খেতে পারেন। (ডিমের সাদা অংশ প্রতিদিন খাওয়া যেতে পারে, তবে ডিমের কুসুম সপ্তাহে তিনবারের বেশি খাবেন না।)

দুধ এবং অন্যান্য দুগ্ধজাত খাবার আপনাকে ডায়াবেটিসের সময় একটি সুষম খাদ্য বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে। দুধ আপনার কার্বোহাইড্রেট কাউন্ট বাড়ায়। শোবার সময় দুধ খাওয়া এড়িয়ে চলা ভালো কারণ শোবার আগে কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো নাও হতে পারে।

আপনার খাদ্যতালিকায় বাটারমিল্ক অন্তর্ভুক্ত করুন

ক্যান্সার + ডায়াবেটিস ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সেরা দুগ্ধজাত উপাদান হল ইয়গার্ট, দই এবং বাটার মিল্ক। সকালে বা দিনের অন্যান্য সময়ে দুধ খাওয়া যেতে পারে।

আপনি যখন আপনার খাদ্য তালিকায় ফল নির্বাচন করার সময়, তাদের গ্লাইসেমিক সূচক বিবেচনা করুন। ফলগুলি অত্যন্ত পুষ্টিকর তবে বেশিরভাগ ফলের মধ্যে সুগারও থাকে।

আপেল, অ্যাভোকাডো, চেরি, আঙুর, কিউই ফল, কমলালেবু, প্লামস এবং মাঝারি পাকা কলার মতো ফলগুলির গ্লাইসেমিক সূচক কম থাকে। খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এগুলি নিরাপদ।

বেশিরভাগ ক্যান্সার রোগীদের জন্য আপেল নিরাপদ

পেঁপে এবং আনারসের মতো ফলগুলির মধ্যে মাঝারি গ্লাইসেমিক সূচক রয়েছে। তরমুজের মতো ফলে গ্লাইসেমিক সূচক বেশি থাকে।

কম গ্লাইসেমিক সূচকযুক্ত ফল অন্যান্য ফলের তুলনায় বেশি পরিমাণে খাওয়া যেতে পারে। যাইহোক, যদি রোগী গুরুতরভাবে ডায়াবেটিসে ভুগছেন, তাদের জন্য কম গ্লাইসেমিক সূচকযুক্ত ফলগুলিও এড়িয়ে চলা ভালো।

আপনার খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য আমিষ জাতীয় খাবার নির্বাচন করুন

চর্বিহীন মাংসে স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট কম থাকে এবং ক্যান্সার রোগীদের জন্য অত্যন্ত ভালো।

ক্যান্সারের সময় প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে চামড়া ছাড়া মুরগি, টার্কি, মাছ এবং অন্যান্য সামুদ্রিক খাবার প্রতিদিন খাওয়া যেতে পারে।

মাঝারি চর্বিযুক্ত মাংসের ছোট অংশ যেমন গ্রাউন্ড ল্যাম্ব, পর্ক ইত্যাদি মাঝে মাঝে খাওয়া যেতে পারে।

উচ্চ চর্বিযুক্ত এবং প্রক্রিয়াজাত মাংস যেমন সসেজ জাতীয় খাবার সম্পূর্ণরূপে এড়ানো প্রয়োজন।

প্রতিদিন আমি কতটা মাংস খেতে পারি?

এই প্রশ্নের উত্তর ব্যক্তি বিশেষ আলাদা আলাদা হয় এবং এটি বয়স, শরীরের ওজন, ক্যান্সারের ধরন, শারীরিক কাজকর্ম ইত্যাদি বিষয়ের উপর নির্ভর করে। আমাদের ডায়েটিশিয়ান আপনার সম্পর্কে বিশদে জানার পর আপনার প্রতিদিনের খাওয়ার পরিমাণ বলে দিতে পারেন।

রেড মিট পুরোপুরি এড়িয়ে চলা ভালো। প্রতিদিনের মাছ এবং মুরগির মাংস বেছে নিন।

আমার কতটা অন্তর অন্তর খাবার খাওয়া উচিত?

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অল্প অল্প করে, ঘন ঘন খাবার সবচেয়ে ভালো। নির্দিষ্ট সময়সূচী মেনে চলুন যাতে আপনি প্রতিদিন একই সময়ে একই পরিমাণে খাবার গ্রহণ করেন। যা হাইপোগ্লাইসেমিয়া এড়াতে সাহায্য করে।

স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস খান

ক্যান্সারের সময় খাবার খাওয়ার মধ্যে স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস

খালি পেটে থাকবেন না। না খেয়ে ৫ ঘণ্টার বেশি থাকবেন না। তিনবার বেশি বেশি খাবারের পরিবর্তে 4 থেকে 6 বার অল্প অল্প খাবার খান। যা সারাদিন আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করবে।

ক্ষুধা এবং খিদে ভাব বজায় রাখতে খাবার খাওয়ার সময়ের মধ্যে 3-5 ঘন্টার ব্যবধান বজায় রাখা যেতে পারে।

সকালের জলখাবার খেতে দেরি করবেন না! ঘুম থেকে ওঠার দেড় ঘণ্টার মধ্যে জলখাবার সেরে ফেলুন। হালকা খিদে মেটাতে স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস খান।

আমি কি চা এবং কফি খেতে পারি?

চা এবং কফিতে ক্যাফেইন থাকে। যা আপনার শরীরের ইনসুলিন ব্যবহার করার ক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

ক্যান্সারে আক্রান্ত ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য চা নিরাপদ

ক্যান্সারে আক্রান্ত ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য চা নিরাপদ

আপনার যদি টাইপ 2 ডায়াবেটিস থাকে তবে আপনার শরীর ইতিমধ্যেই সর্বোত্তম মাত্রায় ইনসুলিন ব্যবহার করতে অক্ষম। খাওয়ার পরে, আপনার রক্তে শর্করা স্বাভাবিক সীমার উপরে উঠতে থাকে। ক্যাফিন আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক সীমার মধ্যে নামিয়ে আনা আরও কঠিন করে তোলে।

প্রতিদিন প্রায় 200 মিলিগ্রাম ক্যাফেইন বেশিরভাগ মানুষের জন্য নিরাপদ বলে মনে করা হয়। এটি প্রায় 240 মিলিগ্রাম কফি হবে। আপনি ডিক্যাফিনেটেড কফি (ডিক্যাফ) বেছে নিতে পারেন কারণ এতে ক্যাফিনের মাত্রা কম থাকবে।

অনেকেই তাদের চা এবং কফিকে ব্রাউন সুগার, মধু, গুড় এবং অন্যান্য মিষ্টি দিয়ে মিষ্টি করতে পছন্দ করেন। এই সমস্ত পদার্থের চিনির মতো একই প্রভাব রয়েছে। মিষ্টি ছাড়া চা এবং কফি গ্রহণ করা ভালো।

আমার কি কার্বোহাইড্রেট সম্পূর্ণভাবে ত্যাগ করা উচিত?

এমন কোন প্রমাণ নেই যে আপনার খাবার থেকে কার্বোহাইড্রেট সম্পূর্ণভাবে বাদ দেওয়া ক্যান্সার বা ডায়াবেটিসের চিকিৎসায় সাহায্য করবে।

এটিকে সম্পূর্ণরূপে বাদ দেওয়ার পরিবর্তে, আপনি এটি সীমিত পরিমাণে ব্যবহার করতে পারেন। আপনার ডায়াবেটিস থাকলেও আপনার দৈনিক ক্যালোরির 45-60% কার্বোহাইড্রেট হতে পারে।

পরিমিত মাত্রায় কার্বোহাইড্রেট গ্রহণ

ডায়াবেটিস এবং ক্যান্সারের সময় কার্বোহাইড্রেট পরিমিতভাবে চালিয়ে যান

কেমোথেরাপির মতো কিছু ক্যান্সারের চিকিত্সার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসেবে বমি বমি ভাব এবং বমি হতে পারে। যা আপনার খাদ্য গ্রহণকে প্রভাবিত করতে পারে, যা রক্তে শর্করার মাত্রা কমিয়ে দেয়। যাতে আপনি সঠিকভাবে খাওয়াদাওয়া করতে পারেন তার জন্য বমি ভাব কাটানোর ওষুধ নিতে পারেন।

আমি একটি সঠিক ডায়েট অনুসরণ করছি, এখনও কেন আমার রক্তে শর্করা বেশি?

ক্যান্সারের চিকিত্সার সময়, আপনার ডায়েট ছাড়া অন্য কারণেও আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে।

স্ট্রেস, ক্যান্সারের ওষুধ যেমন স্টেরিওর ইত্যাদি কারণ হতে পারে।

আপনি যেগুলো করতে পারেন তা হল:

  1. আপনার ডায়েট অনুসরণ করতে থাকুন
  2. প্রচুর জল খান
  3. সারা দিনে অল্প অল্প করে বার বার খাবার খান।
  4. আপনার কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের উপর নজর রাখুন। আপনার জন্য সঠিক পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট নির্ধারণ করতে একজন ক্যান্সার পুষ্টিবিদের সাথে কথা বলুন।
  5. আপনার সুগারের মাত্রা নিয়মিত পরীক্ষা করুন এবং আপনি যদি এখনও বুঝতে না পারেন যে কেন সেটা বাড়ছে, তাহলে দেরি না করে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলুন।

Related Posts

Leave a Comment