জরায়ু মুখ ক্যান্সারের চিকিৎসার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি কীভাবে পরিচালনা করবেন? (Side Effects of Cervical Cancer Treatment)

by Team Onco
319 views

জরায়ু মুখের ক্যান্সার (Cervical Cancer) মহিলাদের মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ ক্যান্সারগুলির মধ্যে অন্যতম। এটি তখনই ঘটে যখন জরায়ুর আস্তরণের কোষগুলি মিউটেশনের মধ্য দিয়ে যায় এবং অনিয়ন্ত্রিতভাবে বৃদ্ধি পেতে শুরু করে।

বিশ্বব্যাপী, প্রতি বছর প্রায় 5 লক্ষ মহিলা সারভাইকাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হন এবং এর কারণে 3,00,000 জনেরও বেশি মহিলার মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। 2018 সালে, প্রায় 5,70,000 জনের মধ্যে সার্ভাইক্যাল ধরা পড়ে এবং প্রায় 3,11,000 জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়।

যাইহোক, স্ক্রিনিং টেস্ট শুরু হওয়ার পর থেকে, উন্নত দেশগুলিতে জরায়ু মুখের ক্যান্সারের ঘটনা এবং মৃত্যুর হার অর্ধেকেরও বেশি কমে গেছে।

প্রতিটি চিকিৎসারই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে, একইভাবে, সারভাইকাল চিকিৎসারও কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে যা ব্যবহৃত পদ্ধতির উপর নির্ভর করে।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি তীব্র হতে পারে যা চিকিৎসার সময় বা চিকিৎসার পর পরই প্রদর্শিত হতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সাধারণত ধীরে ধীরে দেখা দেয়, চিকিৎসা শেষ হওয়ার অনেক পরে। এখানে, আমরা শুধুমাত্র তীব্র পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এবং তাদের ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা করব। 

Table of Contents

সারভাইকাল  ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত বিভিন্ন পদ্ধতি

জরায়ুমুখের ক্যান্সারের চিকিৎসা জটিল এবং একটি বহুবিভাগীয় পদ্ধতির প্রয়োজন। সার্ভাইক্যাল ক্যান্সার নির্ণয়ের সময় সামগ্রিক স্বাস্থ্য, বয়স এবং ক্যান্সারের মাত্রার উপর নির্ভর করে নিম্নলিখিত চিকিৎসা পদ্ধতির মাধ্যমে জরায়ুর ক্যান্সারের চিকিৎসা করা যেতে পারে।

  •         সার্জারি
  •         রেডিয়েশন থেরাপি
  •         কেমোথেরাপি
  •         টার্গেটেড থেরাপি
  •         ইমিউনোথেরাপি

সারভাইকাল ক্যান্সারের জন্য চিকিৎসার বিকল্প

স্টেজ IA1

এই স্টেজে, ক্যান্সার সার্ভিক্সের মধ্যে থাকে। মহিলা ফার্টিলিটি সংরক্ষণ করতে চান কি না এবং ক্যান্সার রক্ত ও লিম্ফ ভ্যাসেলে ছড়িয়ে পড়েছে কিনা তার উপর ভিত্তি করে চিকিৎসা পদ্ধতি বেছে নেওয়া হয়।

এই স্টেজের জন্য উপযুক্ত চিকিৎসা পদ্ধতিগুলি হল:

  •         পেলভিক এলাকায় লিম্ফ নোড অপসারণের সাথে বা অপসারণ ছাড়াই কোন বায়োপসি
  •         জরায়ুমুখ, যোনির উপরের অংশ, পার্শ্ববর্তী টিস্যু এবং পেলভিক এলাকায় লিম্ফ নোডগুলি অপসারণের জন্য র‌্যাডিক্যাল ট্র্যাচেলেক্টমি
  •         এক্সটার্নাল বিম রেডিয়েশন থেরাপি (EBRT), এর পরে ব্র্যাকিথেরাপি
  •         পেলভিক লিম্ফ নোডগুলি অপসারণের সাথে র‌্যাডিক্যাল হিস্টেরেক্টমি (জরায়ু এবং উভয় ডিম্বাশয় অপসারণ করা)

স্টেজ IB1 & 2 এবং IIA1

এই স্টেজে ক্যান্সার সার্ভিক্স এবং উপরের যোনিতে থাকে এবং কাছাকাছি লিম্ফ নোডগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে না।

এই স্টেজে জরায়ু মুখের ক্যান্সারের চিকিৎসা করা যেতে পারে:

  •         কেমোথেরাপির পাশাপাশি রেডিয়েশন থেরাপিসহ বা রেডিয়েশন থেরাপি ছাড়া র‌্যাডিক্যাল হিস্টেরেক্টমি এবং পেলভিক লিম্ফ নোড ডিসেকশন
  •         রেডিয়েশন থেরাপি সঙ্গে কনকারেন্ট কেমোথেরাপি
  •         র‌্যাডিক্যাল ট্র্যাচেলেক্টমি (ফার্টিলিটি সংরক্ষণ)
  •         কেবলমাত্র রেডিয়েশন থেরাপি

স্টেজ IB3, IIB, III & 2 এবং IVA

এই স্টেজে ক্যান্সার স্থানীয়ভাবে উন্নত এবং কাছাকাছি লিম্ফ নোড এবং পেলভিক অঙ্গগুলিতেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এই স্টেজে চিকিৎসা অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:

  •         কেমোথেরাপি সহ রেডিয়েশন থেরাপি
  •         ব্র্যাকিথেরাপি

স্টেজ IVB

এই স্টেজে ক্যান্সার মেটাস্ট্যাটিক হয়ে যায় এবং শরীরের দূরবর্তী অংশে ছড়িয়ে পড়ে।

এই স্টেজে চিকিৎসা পদ্ধতি অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:

  •         কেমোথেরাপি
  •         লক্ষণগুলি উপশম করতে কেমোথেরাপি সহ বা ছাড়া, রেডিয়েশন থেরাপি
  •         কেমোথেরাপি বা ইমিউনোথেরাপির সাথে টার্গেটেড থেরাপি

বার বার সারভাইকাল ক্যান্সার হওয়া

সফল চিকিৎসার পরেও যদি সারভাইকাল ক্যান্সার ফিরে আসে, রোগ কতটা ছড়িয়ে পড়েছে এবং আগে হওয়া চিকিৎসার কথা বিবেচনা করে নিম্নলিখিত চিকিৎসা বিকল্পগুলি বেছে নেওয়া যেতে পারে:

  •         রেডিয়েশন থেরাপি এবং কেমোথেরাপি
  •         পেলভিক এক্সেন্টারেশন সার্জারি
  •         উপসর্গগুলি থেকে মুক্তি দিতে এবং জীবনের মান উন্নত করতে কেবলমাত্র কেমোথেরাপি বা টার্গেটেড থেরাপি বা ইমিউনোথেরাপির সঙ্গে কেমোথেরাপির সংমিশ্রণ
  •         কেবলমাত্র ক্লিনিকাল ট্রায়ালের অধীনে থাকা ওষুধগুলি অথবা অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতির সাথে একসঙ্গে

সার্জারি এবং এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ক্যান্সার রিমুভাল সার্জারির প্রধান লক্ষ্য হল আশেপাশের সুস্থ টিস্যুগুলির কোনও ক্ষতি না করেই সমস্ত ক্যান্সার কোষকে অপসারণ করা।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, সার্জারির পর শরীরে অবশিষ্ট ক্যান্সার কোষগুলিকে ধ্বংস করার জন্য রোগীকে রেডিয়েশন থেরাপি এবং কেমোথেরাপি দেওয়া হতে পারে, অস্ত্রোপচারের ঝুঁকির বৈশিষ্ট্যগুলির উপর নির্ভর করে।

জরায়ুর ক্যান্সার তার খুব প্রাথমিক পর্যায়ে ক্রায়োসার্জারি (তরল নাইট্রোজেন ব্যবহার করে হিমাঙ্কের তাপমাত্রা তৈরি করে, ক্যান্সার কোষগুলিকে ধ্বংস করার জন্য) বা লেজার সার্জারি (ক্যান্সার কোষগুলিকে পোড়াতে এবং ধ্বংস করতে উচ্চ-শক্তির রশ্মি ব্যবহার করে) এর মাধ্যমে অপসারণ করা যেতে পারে।

এই ক্ষুদ্র পদ্ধতিগুলি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে যেমন:

  •         ব্যথা
  •         ক্লান্তি
  •         যোনিপথে রক্তপাত বা জলযুক্ত স্রাব
  •         সাধারণত টিস্যু ক্ষতির কারণে পায়ে ক্র্যাম্প

এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি খুবই মৃদু এবং নিজে থেকে কমে যেতে পারে।

কিছু মহিলাকে LEEP (লুপ ইলেক্ট্রোসার্জিক্যাল এক্সিশন পদ্ধতি) নামক একটি পদ্ধতির মধ্য দিয়ে যেতে হতে পারে, যাকে কনাইজেশনও বলা হয়। এই পদ্ধতিতে, ক্যান্সার টিস্যু এক্সাইজ করার জন্য একটি পাতলা তারের মধ্য দিয়ে বৈদ্যুতিক প্রবাহ দেওয়া হয়।

যে মহিলাদের স্টেজ 1 সারভাইকাল ক্যান্সার রয়েছে তাদের আশেপাশের লিম্ফ নোড (র‌্যাডিক্যাল ট্র্যাচেলেক্টমি) বা জরায়ু অপসারণ (হিস্টেরেক্টমি) সহ জরায়ুর মুখ অপসারণ করতে হতে পারে।

এই পদ্ধতিগুলির যেকোনও একটির পরে, রোগী নিম্নলিখিত পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি অনুভব করতে পারে:

  •         কয়েক দিন থেকে 2-3 সপ্তাহের জন্য ব্যথা
  •         ক্লান্তি
  •         কয়েকদিন ধরে যোনিপথে রক্তক্ষরণ বা কিছু জলযুক্ত স্রাব
  •         ক্র্যাম্প
  •         প্রস্রাব করতে অসুবিধা (বর্ধিত ফ্রিকোয়েন্সি, অসম্পূর্ণ স্থানান্তর) বা খুব কমই মলত্যাগ
  •         নিম্ন অঙ্গে রক্ত জমাট বাঁধার ঝুঁকি
  •         সংক্রমণের ঝুঁকি, বিশেষ করে সার্জারির সময় যে অংশ কাটা হয়েছে সেই কাটার জায়গায়।

সার্জারি ফলে মূত্রাশয়, মূত্রনালী বা মলদ্বারের মতো কাছাকাছি অঙ্গগুলির ক্ষতির খুব হালকা ঝুঁকি থাকতে পারে।

ট্র্যাচেলেক্টমি, সাধারণত প্রাথমিক ক্যান্সারে আক্রান্ত মহিলাদের মধ্যে করা হয় যারা সন্তান ধারণের জন্য জরায়ু সংরক্ষণ করতে চান, দীর্ঘমেয়াদী সমস্যার কারণ হতে পারে যেমন গর্ভপাত এবং প্রি-টার্ম ডেলিভারির ঝুঁকি বেশি।

হিস্টেরেক্টমি করা মহিলারা গর্ভবতী হতে পারে না।

রেডিয়েশন থেরাপি

রেডিয়েশন থেরাপি ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে উচ্চ-শক্তি রেডিয়েশন বিম ব্যবহার করে। সারভাইকাল ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য, রেডিয়েশন থেরাপি দুটি উপায়ে দেওয়া যেতে পারে:

এক্সটার্নাল বিম রেডিয়েশন থেরাপি (EBRT)

এই ধরনের রেডিয়েশন থেরাপিতে, শরীরের বাইরে উপস্থিত একটি মেশিন থেকে রেডিয়েশন বিমগুলি ক্যান্সারের দিকে যায়।

সারভাইকাল ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য, রেডিয়েশন থেরাপি সাধারণত কম ডোজ কেমোথেরাপির সাথে সম্মিলিতভাবে দেওয়া হয়।

ব্র্যাকিথেরাপি (ইন্টারনাল বিম রেডিয়েশন থেরাপি)

এই পদ্ধতিতে, একটি রেডিওঅ্যাক্টিভ সোর্স সম্বলিত একটি ডিভাইস যোনি বা জরায়ুমুখে স্থাপন করা হয় যাতে পার্শ্ববর্তী টিস্যুর বেশি ক্ষতি না করে ক্যান্সার কোাষগুলিকে মেরে ফেলা যায়।

সারভাইকাল ক্যান্সারে, ব্র্যাকিথেরাপি EBRT এর সাথে মিলিতভাবে দেওয়া হতে পারে।

সারভাইকাল ক্যান্সারের জন্য রেডিওথেরাপি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে, যা রেডিওথেরাপির (তীব্র) সময় বা পর পরই বা রেডিওথেরাপির অনেক সপ্তাহ, মাস বা এমনকি বছর (বিলম্বিত) পরে প্রকাশ হতে পারে।

তীব্র পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিম্নলিখিত অন্তর্ভুক্ত:

ক্লান্তি

রেডিওথেরাপি শরীরে অনেক রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটাতে পারে যা থেকে ক্লান্তি দেখা দিতে পারে। এছাড়াও, পর্যাপ্ত জল না খেলে ডিহাইড্রেশনের থেকেও ক্লান্তি দেখা দিতে পারে।

ক্লান্তি কমাতে পর্যাপ্ত জল খান

মূত্রাশয় এবং অন্ত্রের সমস্যা

ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি, জরুরীতা, বা জ্বালাভাব হল সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া, এবং সময়ের সাথে সাথে এগুলি কমতে পারে।

বর্ধিত গতিশীলতা, জলযুক্ত মল বা এমনকি কোষ্ঠকাঠিন্য রেডিয়েশন থেরাপির পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসাবে দেখা দিতে পারে।

ত্বকের সমস্যা

রেডিওথেরাপির কারণে, ত্বক লাল এবং কালচেভাব দেখা দিতে পারে এবং এমনকি কাঁচা জায়গা থেকে চামড়া উঠতে পারে।

চুল পড়া

পিউবিক এলাকা সহ পেলভিক এলাকা যেখানে রেডিওথেরাপি দেওয়া হয়েছে, সে অংশের চুল উঠে যেতে পারে, পরে আবার তা বৃদ্ধি পেতে পারে।

যোনি স্রাব

অস্বাভাবিক যোনি স্রাব হতে পারে এবং তাতে রক্ত দেখা দিতে পারে বা দুর্গন্ধযুক্ত হতে পারে।

রেডিওথেরাপির কিছু বিলম্বিত প্রভাব থাকতে পারে এবং এতে নিম্নলিখিত অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে:

লিম্ফেডেমা

রেডিয়েশন লিম্ফ তরল নিষ্কাশনকে প্রভাবিত করতে পারে যার ফলে এটি পায়ে জমা হয়, যার ফলে পা ফুলে যায়।

মূত্রাশয় এবং অন্ত্রের সমস্যা

উপরে উল্লিখিত মূত্রাশয় এবং অন্ত্রের সমস্যাগুলি রেডিয়েশন সম্পূর্ণ করার কয়েক মাস বা বছর পরেও দেখা দিতে পারে।

যোনি সংকুচিত

রেডিয়েশন থেরাপির কারণে যোনিপথ সংকুচিত হতে পারে, ফলস্বরূপ, যৌন মিলন বা শ্রোণী পরীক্ষা বেদনাদায়ক বা অস্বস্তিকর হতে পারে।

মেনোপজ

যদি ডিম্বাশয় অপসারণ করা হয়, বা রেডিওথেরাপি দ্বারা গুরুতরভাবে প্রভাবিত হয়, তাহলে আপনি আর হরমোন তৈরি করতে পারবেন না, যার ফলে মেনোপজ হয়।

কেমোথেরাপি

ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে এটি নির্দিষ্ট ওষুধ এককভাবে বা অন্য পদ্ধতির সঙ্গে সম্মিলিতভাবে ব্যবহার হয়। প্রায়শই এই ওষুধগুলি মৌখিকভাবে দেওয়া হয় বা শিরায় ইনজেকশন আকারে দেওয়া হয়।

কেমোথেরাপির সাথে সম্পর্কিত সাধারণ তীব্র পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি নিম্নলিখিত:

  •         বমি বমি ভাব
  •         বমি
  •         ক্ষুধামান্দ্য
  •         চুল পড়া
  •         মুখে ঘা
  •         ক্লান্তি

ইমিউনোথেরাপি

এটি ক্যান্সার কোষ সনাক্ত করতে এবং মেরে ফেলার জন্য একজন ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কিছু ওষুধ ব্যবহার করে।

নিচে ইমিউনোথেরাপির তীব্র পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে উল্লেখ করা হল:

  •         ক্লান্তি
  •         জ্বর
  •         মাথাব্যথা
  •         ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্য
  •         ক্ষুধামান্দ্য
  •         বমি বমি ভাব
  •         চামড়ায় ফুসকুড়ি

টার্গেটেড থেরাপি

এর সাথে ওষুধ বা অন্যান্য পদার্থের ব্যবহার জড়িত যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিতে অবদান রাখে এমন নির্দিষ্ট জিন, প্রোটিন বা টিস্যুগুলিকে লক্ষ্য করে।

এই ওষুধগুলি আশেপাশের টিস্যুগুলির ক্ষতি না করে ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি এবং বিস্তারে বাধা দেয়।

উচ্চ রক্তচাপ, ক্লান্তি এবং বমি বমি ভাব টার্গেটেড থেরাপির কয়েকটি সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া।

সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলির ব্যবস্থাপনা

নিম্নলিখিত টিপসগুলি জরায়ুর ক্যান্সারের চিকিৎসার কিছু সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াকে কার্যকরভাবে পরিচালনা করতে সাহায্য করতে পারে।

ডায়রিয়া

  •         ডায়রিয়ার কারণে ডিহাইড্রেশন পরিচালনা করতে কমপক্ষে 8 থেকে 12 গ্লাস জল এবং পর্যাপ্ত তরল পান করুন, যেমন তাজা ফলের রস।
  •         উচ্চ চর্বিযুক্ত এবং চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।
  •         সোডিয়াম ও পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খান।
  •         কম ফাইবারযুক্ত খাবার খান।

ডায়রিয়ার সমস্যা এড়াতে বেছে নিন পাউরুটি

  •         চুইংগাম এড়িয়ে চলুন।
  •         অ্যালকোহল সেবন করবেন না, তামাকজাত দ্রব্য এবং ক্যাফেইনযুক্ত পণ্য, যেমন কফি, চা, সোডা বন্ধ করুন।

কোষ্ঠকাঠিন্য

ওটস উচ্চ ফাইবার সমৃদ্ধ এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে

  •         ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার খান।
  •         প্রচুর জল খান এবং হাইড্রেটেড থাকুন।
  •         মৃদু ব্যায়াম করুন, যেমন হজমশক্তি উন্নত করার জন্য হাঁটাহাঁটি করুন।
  •         ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ ব্যবহার করুন।

বমি বমি ভাব এবং বমি

  •         ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী বমি বমি ভাব কাটাতে ওষুধ খান।
  •         প্রচুর জল বা তরল খাবার খান।
  •         চর্বিযুক্ত, ভাজাভুজি এবং চিনিযুক্ত খাবার খাবেন না।
  •         ক্যান্সারের চিকিৎসার আগে বা অবিলম্বে খাওয়া বা পান করা এড়িয়ে চলুন।
  •         বমি বমি ভাব কাটাতে নিজেকে অন্য কাজে নিয়ুক্ত করুন।
  •         বমি বমি ভাব কমাতে পেপারমিন্ট ক্যান্ডি বা আদা দিয়ে তৈরি ক্যান্ডি ব্যবহার করে দেখুন।

আদা বমি ভাব কাটাতে সাহায্য করে

জরায়ুর ক্যান্সারের চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আদা বমি বমি ভাব কমাতে পারে

ক্লান্তি

  •         প্রতিদিন হালকা থেকে মাঝারি ব্যায়াম করুন যাতে আপনি আরও ভালো বোধ করেন এবং প্রবলভাবে সক্রিয় হয়ে ওঠেন।
  •         পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন সে বসে বা শুয়ে যেভাবেই হোক। তবে অতিরিক্ত নয়।
  •         একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন।
  •         যোগা এবং মেডিটেশন করুন।
  •         ম্যাসাজ থেরাপি নিন।
  •         নিউট্রিশনাল কাউন্সেলিং নিন।

যোগা ক্লান্তি দূর করে

চুল পড়া

  •         আপনার স্কাল্পকে ঠান্ডা, সূর্যের ক্ষতি এবং অন্যান্য পরিবেশগত দূষণ থেকে রক্ষা করুন।
  •         পনিটেল বা বিনুনি করা এড়িয়ে চলুন।
  •         চুল পড়া এড়াতে সিল্ক বা সাটিনের বালিশ ব্যবহার করুন।
  •         আপনার চুল আঁচড়ানোর জন্য একটি চওড়া দাঁতযুক্ত হেয়ার ব্রাশ ব্যবহার করুন।
  •         খুব বেশি ব্রাশ করা বা চুল টানাটানি করবেন না।
  •         শক্তিশালী সুগন্ধি, অ্যালকোহল এবং স্যালিসিলিক অ্যাসিডযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না।
  •         একটি সিন্থেটিক পরচুলা কেনার কথা ভাবতে পারেন।

ক্ষুধামান্দ্য

  •         একসঙ্গে বেশি খাবারের পরিবর্তে সারা দিনে বেশ কয়েকবার অল্প অল্প করে খাবার খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।
  •         খাওয়ার সময় জল খাবেন না।
  •         শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকুন।
  •         উচ্চ ক্যালোরি এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ স্ন্যাকস খান।
  •         দিনে অন্তত একবার আপনার প্রিয় খাবার খান।

ত্বকের সমস্যা: ফুসকুড়ি, শুষ্ক এবং ত্বকে চুলকানি

  •         ত্বক পরিষ্কার করতে হালকা সাবান এবং গরম জল ব্যবহার করুন।
  •         ত্বক ময়েশ্চারাইজড রাখতে হালকা ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করুন।
  •         আপনার ত্বককে গরম এবং ঠান্ডা থেকে রক্ষা করতে প্রয়োজনীয় সতর্কতা অবলম্বন করুন।
  •         সরাসরি রোদের সংস্পর্শে আসা এড়ায়ে চলুন।
  •         স্নানের গরম জলে কয়েক ফোঁটা বেবি অয়েল যোগ করুন।
  •         নরম এবং ঢিলেঢালা পোশাক পরুন।
  •         চুলকানি রোধ করতে স্নানের জলে বেকিং সোডা, ওটমিল বা বেবি অয়েল যোগ করার চেষ্টা করুন।
  •         যাতে ঘাম না হয় তার জন্য আপনার ঘর যেন ঠান্ডা থাকে এবং ভালোভাবে বায়ুচলাচল করে তা নিশ্চিত করুন।

ত্বক ময়েশ্চারাইজ় করুন

মূত্রাশয় এবং অন্ত্রের অসংযম

  •         প্রস্রাব বা মল বেশিক্ষণ ধরে রাখবেন না।
  •         ঘুমানোর আগে বা কোনও কঠোর কার্যকলাপ করার পরে মূত্রাশয় খালি করুন।
  •         অ্যালকোহল বা ক্যাফেইনযুক্ত পণ্য, যেমন কফি, চা, সোডা খাবেন না।
  •         সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে হাইজিন কেয়ার প্রোডাক্টের ব্যবহার এড়িয়ে চলুন।
  •         স্বাস্থ্যকর শরীরের ওজন বজায় রাখুন।
  •         ধূমপান করবেন না বা কোনও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার করবেন না।
  •         লক্ষণগুলি অব্যাহত থাকলে চিকিত্সা যত্নের প্রয়োজন হতে পারে।

যোনি শুষ্কতা

  •         ওয়াটার-বেসড জেল লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করুন।
  •         কয়েক দিনের জন্য ভ্যাজাইনাল ময়েশ্চারাইজার প্রয়োগ করুন।

আরও পড়ুন – জরায়ু মুখের ক্যান্সার : কারণ, লক্ষণ এবং চিকিৎসা

(Valium)

Related Posts

Leave a Comment